হার্বসের উপকারিতা - TBNEWS

Breaking

TBNEWS

explore the world news

Post Top Ad

READ ALSO

                                                             

Tuesday, 3 October 2017

হার্বসের উপকারিতা


হার্বসের উপকারিতা
রান্না ও ওষুধে নানা ধরনের হার্বস ব্যবহার করা হয়। কোন হার্বসে কী কী গুণ রয়েছে জেনে নিন।
sananda
সাধারণত হার্বস দু’ধরনের হয়মেডিসিনাল ও কিউলিনারি। ওষুধ ও রান্নার উপকরণ হিসেবে হার্বস প্রায়শই ব্যবহৃত হয়। রান্নার উপকরণে ব্যবহৃত হলেও অনেক হার্বসই শরীর ভাল রাখতে সাহায্য করে। হার্বস মূলত ক্রনিক ডিজ়িজ় প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে। মোটামুটি সব ধরনের হার্বসেই ফাইটোকেমিকাল রয়েছে, যা শরীর সুস্থ রাখতে দারুণ কাজ করে।
তুলসী বা বেসিল
স্যুপ, স্যালাড ও আমিষ নানারকম রান্নায় বেসিল হার্বস ব্যবহার করা হয়। ফ্রেশ বেসিলে রয়েছে ফলিক অ্যাসিড, ড্রায়েড বেসিলে পটাশিয়াম, আয়রন ও ক্যালশিয়াম রয়েছে। বেসিল নানা ফ্লেভারের হয়, লেমন, রেড অ্যানিস, সিনামন ইত্যাদি। অ্যান্টি-ক্যানসার উপাদানে সমৃদ্ধ বেসিল। সর্দি-কাশি কম রাখতেও সাহায্য করে। চুল ভাল রাখার জন্যে দারুণ কাজ করে। টনিকের মতো উপকারী বেসিল।
পুদিনা
চকোলেট, আইসক্রিম, ক্যান্ডি, চিউয়িং গামের মতো নানা রকমের খাবারে পুদিনা বা মিন্টের ফ্লেভার প্রায়শই ব্যবহার করা হয়। পুদিনায় রয়েছে মেন্থল, যা ডাইজেস্টিভ ট্র্যাক্ট ভাল রাখতে সাহায্য করে। পেট ঠান্ডা থাকে, বদহজমের সমস্যা নিমেষেই উধাও হয়ে যায়। একই কারণে পুদিনা বা মিন্ট বেসড অয়েল বা বাম মাথার যন্ত্রণা কম রাখতে সাহায্য করে। মাথাধরা, বমিভাব, ক্লান্তির মতো সমস্যায় পুদিনা পাতা হাতে নিয়ে একটু ম্যাশ করে নিন। তারপর নাকের কাছে ধরুন। পুদিনার ফ্রেশ গন্ধ আপনাকে সতজে করে তুলবে। সর্দি-কাশি সারানোর জন্যেও পুদিনা সাহায্য করে। ব্রেস্ট ক্যানসার প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে পুদিনা।
ডিল বা শল্পা পাতা
ইনসমনিয়া, হেঁচকি ও বদহজমের সমস্যায় ডিল উপকারী। স্টমাক ব্যাকটেরিয়া নষ্ট করতে সক্ষম ডিল বাচ্চাদের কলিকের সমস্যা কম রাখে। লিভার ও গল ব্লাডারের স্বাস্থ্য ভাল রাখার জন্যে ডিল সাহায্য করে। ডিলে ক্যালশিয়াম রয়েছে, যা ল্যাকটেশনে সাহায্য করে।
পার্সলে
পার্সলেতে যথেষ্ট পরিমাণে ক্যালশিয়াম ও আয়রন রয়েছে। ত্বকের সমস্যা দূর করতে ও হজমে সাহায্য করে পার্সলে। অ্যাজ়মা, সর্দি-কাশি, মেনস্ট্রুয়াল প্রবলেম (পিরিয়ডসে পেন ও ওয়াটার রিটেনশন) এর সমস্যা প্রতিরোধে পার্সলে বড় ভূমিকা নেয়। ফ্রেশ পার্সলেতে ভিটামিন সি ও অ্যান্টি-ক্যানসার উপাদান রয়েছে।
ধনেপাতা
ধনেপাতায় যথেষ্ট পরিমাণে অ্যান্টইক্সিডেন্ট রয়েছে। লিভার ও ব্রেস্ট ক্যানসার প্রতিরোধে সাহায্য করে। গোটা ধনেতে যথেষ্ট পরিমাণে ক্যালশিয়াম ও আয়রন রয়েছে। বদহজমের সমস্যা উপশমেও ধনেপাতা সাহায্য করে।
ব্রাহ্মী
স্মৃতিশক্তি ভাল রাখতে, স্ট্রেস ও অ্যাংজ়াইটি কম রাখতে ব্রাহ্মী সাহায্য করে। শিশু ও বয়স্কদের জন্যে ব্রাহ্মী পাতা খুব ভাল কাজ করে। স্যালাডে ব্রাহ্মী পাতা ব্যবহার করতে পারেন।
অরিগ্যানো
সাম্প্রতিক গবেষণায় জানা গিয়েছে কুকিং হার্বসের মধ্যে অরিগ্যানোতে সবচেয়ে বেশি পরিমাণ অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট রয়েছে। অ্যান্টইক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ অরিগ্যানোতে রয়েছে ম্যাঙ্গানিজ়, ক্যালশিয়াম, ভিটামিন ও, ভিটামিন সি ও ওমেগা থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিড। হজমে সাহায্য করে অরিগ্যানো। টোম্যাটো স্যুপে সামান্য ড্রায়েড অরিগ্যানো মেশান। সুন্দর ফ্লেভার হবে। পাস্তা বা পিত্‌জ়া সসে ড্রাই অরিগ্যানোর সঙ্গে ফ্রেশ অরিগ্যানোও মেশাতে পারেন। মাশরুম ও পেঁয়াজ হালকা করে নেড়ে সামান্য অরিগ্যানো মেশান। ভাল লাগবে।
থাইম
গরমের সময়ের জন্যে উপযুক্ত ফ্রেশ থাইম। আয়রন, ম্যাঙ্গানিজ়, ভিটামিন কে, ক্যালশিয়ামে ভরপুর নষ্ট হয়ে যেতে পারে। থাইমে নানা ধরনের ফ্ল্যাভনয়েড রয়েছে, যা এর অ্যান্টইক্সিডেন্ট ক্যাপাসিটি বাড়াতে সাহায্য করে। সর্দি-কাশির জন্যে থাইম সিরাপের উপকরণ হিসেবে ব্যবহার করা হয়। গলায় ইনফেকশন হলে গার্গেল করতেও প্রয়োজন হয়। পেটে গন্ডগোল বা বদহজমের সমস্যাতেও থাইম উপকারী। ক্লান্তি ও অবসাদ কাটাতে থাইমের জুড়ি নেই। স্নানের জলে একটু থাইম মিশিয়ে স্নান করুন। ফ্রেশ লাগবে। রান্নাতেও থাইমের যথেষ্ট গুরুত্ব রয়েছে। থাইম রান্নার একেবারে শেষে, আঁচ থেকে নামানোর সময় ছড়িয়ে দেবেন। কড়া আঁচে থাইমের ফ্লেভার স্যুপ, সস বা ফ্রেঞ্জ কুইজ়িন ট্রাই করলে থাইম ব্যবহার করুন। ল্যাম, ডিম বা চিকেনের ডিশেও সিজ়নিং হিসাবে থাইম ব্যবহার করতে পারেন। গরম গরম অমলেটের ওপর সামান্য ফ্রেশ থাইম ছড়িয়ে দিন। দারুণ লাগবে। টোম্যাটোর যে কোনও প্রিপারেশনের সঙ্গে থাইম খুব ভাল কাজ করে।
লেমন গ্রাস
লম্বা সবুজ রঙের লেমন গ্রাস সাউথ ইস্ট এশিয়ার নানা ধরনের খাবারে সিজ়নিং হিসাবে ব্যবহার করা হয়। সাধারণত লেমন গ্রাস মিহি করে কুচিয়ে রান্নায় ব্যবহার করা হয়। লেমন গ্রাস দিয়ে হার্বাল টি তৈরি করে খেতে পারেন। লেমন গ্রাস ব্লাড সারকুলেশন ভাল রাখতে সাহায্য করে, মাসলস টোনড আপ রাখে। লেমন গ্রাস, কয়েকটা লবঙ্গ, দারচিনি ও হলুদ দুধের সঙ্গে মিশিয়ে ভাল করে ফুটিয়ে নিন। ঠান্ডা হলে খেতে পারেন। ইমিউন সিস্টেম ভাল রাখতে ও সর্দি-কাশি প্রতিরোধ করতে সাহায্য করবে।
রোজ়মেরি
ম্যাঙ্গানিজ়, ক্যালশিয়াম ও ডায়েটারি ফাইবার সমৃদ্ধ রোজ়মেরি খাবারের স্বাদ বাড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে শরীরের পক্ষেও যথেষ্ট ভাল। রোজ়মেরি নার্ভ স্টিমুলেট করে স্ট্রেস ও দুর্বলতা জনিত নানা সমস্যা যেমন অতিরিক্ত ক্লান্তি, লো ব্লাড প্রেশার, ভেরিকোজ় ভেন, মাথাযন্ত্রণা প্রতিরোধ করে। রোজ়মেরিতে যথেষ্ট পরিমাণ অ্যান্টইক্সিডেন্ট রয়েছে, যা ক্যানসার প্রতিরোধে সাহায্য করে। স্মৃতিশক্তি ভাল রাখতে রোজ়মেরি উপকারী। টোম্যাটো দিয়ে তৈরি নানা ডিশ ও স্যালাডের সিজ়নিং হিসাবে রোজ়মেরি ভাল।
---------------------------------------------------------------------------------------------------------------------------------------------------------------------------- If You have any Questions or Query You can freely ask by put Your valuable comments in the COMMENT BOX BELOW আপনার যদি কোনও প্রশ্ন থাকে তবে আপনি নিচে COMMENT BOX এ আপনার মূল্যবান মন্তব্যগুলি করতে পারেন । #Don’t forget to share this post with your friends on social media

No comments:

Post a Comment

thanks for the comment

READ ALSO